সংবাদ শিরোনাম
 প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয় সবার শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলবে | করোনা টেস্ট করাতে গিয়ে চার বছর আগে হারিয়ে যাওয়া ছেলেকে খুঁজে পেল মা! | পাকিস্তানকে মদিনা শরিফের আদর্শ অনুসরণে মহৎ রাষ্ট্র বানাবো: ইমরান খান | মোদির হাতেই রামমন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, আমন্ত্রিত সব মুখ্যমন্ত্রী | জুমার নামাজের মধ্যদিয়ে মসজিদ হিসেবে খুলছে ‘আয়া সোফিয়া’ | জায়নামাজ চাইলেন সাবরিনা, সঙ্গে কিছু বড় কাপড় | টিউশনের নাশতা খেয়েই দিন পার করা মেয়েটি এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক | তুরস্কে আজান দেয়া বন্ধ করতে পারবে না কেউ: এরদোয়ান | রিমান্ডে স্বামী-স্ত্রীর কাদা ছোড়াছুড়ি | পরিবারের পছন্দের মেয়ে আর প্রেমিকা, দুজনকেই একসঙ্গে বিয়ে করলেন যুবক |
  • আজ ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভারতে ফিল্মি কায়দায় গ্রেপ্তার গ্যাংস্টার, পরে এনকাউন্টারে মৃত্যু

Avatar | ডেস্ক ইডিটর ১০:৩২ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৩, ২০২০ আন্তর্জাতিক

বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় ‘ডন’ সিনেমাতে শাহরুখ খানের সেরা সংলাপ ছিল, ‘ডন কে ধরা কেবল কঠিন নয়, অসম্ভব।’ ভারতের উত্তরপ্রদেশের ডন বিকাশ দুবেও প্রায় সে কথাই বলতে শুরু করেছিলেন। তাকে ধরা অসম্ভব। যদিও আর শেষ রক্ষা হলো না তার।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) সকালে মধ্যপ্রদেশের বিখ্যাত মহাকাল মন্দির থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মধ্যপ্রদেশ থেকে উত্তরপ্রদেশে আনার সময় এনকাউন্টারে নিহত হয়েছেন ভারতের কুখ্যাত এই ডন।

উত্তরপ্রদেশের কানপুরের বাসিন্দা বিকাশ। চৌবেপুর এলাকায় তার গ্রামের বাড়ি। তার বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৬০টি হত্যা, খুনের চেষ্টা, অপহরণ, লুঠের অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু পুলিশ কখনোই তাকে ধরতে পারত না। এতই তার দাপট। গত বৃহস্পতিবার মাঝরাতে চৌবেপুরে অতর্কিতে হানা দিয়েছিল বিশাল পুলিশ বাহিনী। কিন্তু সে খবরও পৌঁছে যায় বিকাশের কাছে।

গ্রামের ভিতর পুলিশকে ঘিরে ধরে গুলি চালায় বিকাশের দলের কর্মীরা। ঘটনাস্থলেই আটজন পুলিশের মৃত্যু হয়। তার মধ্যে পুলিশ অফিসারও ছিলেন। চারজন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান বিকাশ। এরপর তিন দিন তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার (৭ জুলাই) পুলিশ বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পারে দিল্লি-হরিয়ানা সীমানার একটি হোটেলে আছেন বিকাশ। কিন্তু সেখানে পৌঁছেও বিকাশকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশ পৌঁছনোর আগেই বিকাশ পালিয়ে যান।

এ দিকে বিকাশের খোঁজে মরিয়া হয়ে ঘুরছিল পুলিশ। হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ এবং মধ্যপ্রদেশের সীমানায় লাগাতার রেড চলছিল। বৃহস্পতিবার সকালে তেমনই দুইটি সফল রেড চালায় পুলিশ। একটি উত্তরপ্রদেশের ইটাওয়া জেলায়। অন্যটি কানপুরে। কানপুরে একটি ঠেকে হানা দিয়ে পুলিশ গ্রেফতার করে বিকাশের অন্যতম শাগরেদ প্রভাত মিশ্রকে।

অভিযোগ রয়েছে, তাকে গাড়িতে করে থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ ভ্যানের টায়ার ফেটে যায়। চাকা সারাই করতে পুলিশ ভ্যান দাঁড় করালে পালানোর চেষ্টা করে প্রভাত। এক পুলিশ কনস্টেবলের কাছ থেকে সে একটি পিস্তল ছিনিয়ে নেয়।

পুলিশের বয়ান অনুযায়ী, প্রথমে প্রভাত গুলি চালায়। তাতে এক কনস্টেবল আহত হয়। পাল্টা গুলি চালায় পুলিশ। গুলি লাগে প্রভাতের পায়ে। সেখান থেকে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

অন্য দিকে প্রায় একই সময়ে ইটাওয়া থেকে ৫০ হাজার টাকার থলিসহ গ্রেপ্তার হয় বিকাশের আরেক শাগরেদ রণবীর। অভিযোগ আছে, রণবীর এ দিন সকালে একটি কালো স্করপিও গাড়ি নিয়ে ইটাওয়া থেকে রওনা হয়েছিল। রাস্তায় পুলিশের সঙ্গে তার গুলির লড়াই হয়। আহত রণবীরকে গ্রেপ্তার করে কিন্তু পরে তারও মৃত্যু হয়।

পুলিশের সূত্র জানাচ্ছে, এই দুই শাগরেদের থেকেই বিকাশের বর্তমান অবস্থান জানতে পারে পুলিশ। জানা যায়, মধ্যপ্রদেশের মহাকাল মন্দিরে টিকিট কেটে ঢুকেছেন বিকাশ। মধ্যপ্রদেশ পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে সেখানে পৌঁছয় উত্তরপ্রদেশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স। মন্দির থেকেই গ্রেপ্তার হন বিকাশ।

যদিও উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবসহ অনেকেই দাবি করছেন, বিকাশই পুলিশের কাছে সারেন্ডার করেছে। বিকাশ মন্দিরে ঢুকে নিজেই পুলিশকে সেই কথা জানায়। মধ্যপ্রদেশ পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, মন্দিরের একজন রক্ষী তাকে চিনতে পেরে পুলিশকে সতর্ক করে।

মধ্যপ্রদেশ পুলিশ গতকাল সন্ধ্যায় তাকে তুলে দেয় উত্তরপ্রদেশে পুলিশের এসটিএফের হাতে। বিকাশকে উজ্জয়ীনী থেকে নিয়ে আসা হচ্ছিল উত্তরপ্রদেশের শিবলিতে। শুক্রবার (১০ জুলাই) সকালে কানপুরের কাছে এসে উল্টে যায় বিকাশ দুবেকে নিরাপত্তা দিয়ে নিয়ে আসা কনভয়ের একটি গাড়ি। পুলিশের অনুমান, এর পিছনে হাত ছিল বিকাশেরই। এরপরই পুলিশের গাড়ি থেকে পালাতে যায় গ্যাংস্টার।

সূত্রের খবর, তখনই এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় ভারতের কুখ্যাত এই গ্যাংস্টারের।