• আজ ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিরাজদিখানে যুবলীগ নেতা জসিম হত্যার রহস্যের জট খুলেনি

সিরাজদিখানে যুবলীগ নেতা জসিম মঞ্জুর হত্যার রহস্যের জট খুলেনি

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা জসিম মঞ্জুরের মৃত্যুর রহস্য দীর্ঘদিনেও উদঘাটন হয়নি৷ ট্রেনে কাটা পরে জসিম মঞ্জুরের মৃত্যুকে ঘিরে রহস্যের জট বেধেছে। তবে এ রহস্যের জট আদৌ খুলবে কিনা তা নিয়ে নানা কৌতুহলের জন্ম দিচ্ছে।

পরিবার ও দলীয় নেতাকর্মীরা ট্রেনে কাটা পরে জসিম মঞ্জুরের অস্বাভাবিক মৃত্যুকে হত্যা বলে দাবী করেছেন। এদিকে জসিম মঞ্জুরের হত্যার ঘটনার পর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করলেও বর্তমানে কাউকেই এ নিয়ে কথা বলতে শোনা যায় না।

এমনকি এ নিয়ে কারো মাথা ব্যথা নেই বললেই চলে। অন্যদিকে রাজনৈতিক প্রতিহিসাং এবং জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে জসিম মঞ্জুরের হত্যার ঘটনাটি সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে বলে স্থানীয় লোকজন ধারণা করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জসিম মঞ্জুর জীবিত থাকাকালে প্রথমে জৈনসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম দুদুর সমর্থনসহ তার পক্ষে কাজ করতেন এবং পরে ঘটনার প্রায় ৬ মাস পূর্বে একই ইউনিয়নের শাসনগাও গ্রামের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় ধর্ম বিষয় উপ-কমিটির সাবেক সদস্য ও জৈনসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী শেখ মো. জাকির হোসেনকে সমর্থন ও তার পক্ষে কাজ করেন।

চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম দুদু ও আওয়ামী লীগ নেতা শেখ জাকির হোসেনের সমর্থনকে কেন্দ্র করে জসিম মঞ্জুরকে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলে আসছিলো। জসিম মঞ্জুর জীবিত থাকাকালীন সময় স্থানীয় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জেরে মারধরসহ বেশ কয়েকবার হত্যার হুমকির সম্মুক্ষিন হতে হয়। সে সময় জসিম মঞ্জুর স্থানীয় দলীয় একাধিক লোকজনের বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ এনে সিরাজদিখান থানায় তাদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ ও সাধারণ ডাইরী করেন।

এছাড়া জসিম মঞ্জুরের পরিবারের সাথে তার মামাদের সাথে জমিজমা সংক্রান্ত বিষয়াদী নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো বলে স্থানীয় একটি সূত্র থেকে জানা গেছে। জসিম মঞ্জুর হত্যার ঘটনার প্রায় ১১ মাস অতিবাহিত হলেও হত্যার প্রকৃত রহস্য এখনো ঘোলাটেই রয়ে গেছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীসহ জসিম মঞ্জুর হত্যাকান্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটন ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৪ অক্টোবর মাসে জসিম মঞ্জুর বোনের বাড়ীতে বেড়াতে গিয়ে নিখোঁজ হন। পর পরদিন ১৫ অক্টোবর গাজীপুরের টঙ্গী পূর্ব থানা এলাকার রেল লাইন থেকে জসিম মঞ্জুরের মৃতদেহ কয়েক টুকরো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশের পক্ষ থেকে একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়।

নিহত জসিম মঞ্জুরের বড় ভাই হাজী আব্দুর রাজ্জাক এক প্রতিবাদ সভায় বলেন, আমার ভাইকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আমি এই হত্যার বিচার চাই।

এ ব্যপারে সিরাজদিখান উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মঈনুল হাসান নাহিদ জানান, আমরা যুবলীগের পক্ষ থেকে জসিম মঞ্জুরের হত্যার ঘটনার রহস্য উদঘাটনের লক্ষ্যে একাধিক বার মাবববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছি। জসিম মঞ্জুরের পরিবারের লোকজন পারিবারিক ভাবে মামলাটি দেখছেন। এ ব্যাপারে তারা আমাদের সাথে কোন যোগাযোগ করেননি। যদি এ ব্যাপারে তারা আমাদের সহযোগী চায় তাহলে সর্বাত্মক আমরা তাদের পাশে থাকবো।

পিএন/এফএইচপি

, , ,

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজ‘এ । আজই পাঠিয়ে দিন feature.peoples@gmail.com মেইলে