• আজ ১লা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সাংবাদিক দেখলেই পুলিশের আইনি হয়রানি

সাংবাদিক দেখলেই পুলিশের আইনি হয়রানি

আবুল কাশেম রুমন, সিলেট প্রতিনিধি: সিলেট নগরীর পয়েন্টে-পয়েন্টে ট্রাফিক পুলিশের চেকপোস্ট। মিনিটে-মিনিটে মোটরসাইকেল আরহীদের থামিয়ে দেখা হচ্ছে কাগজপত্র ও ড্রাইভিং লাইসেন্স, হেলমেট। আর যদি কোন মোটরসাইলে সাংবাদিক বা প্রেস লেখা দেখা যায় তাহলে ট্রাফিক পুলিশের কর্তার হেনস্থার শেষ নেই।

যদি একটিও আইন ভঙ্গ করেন জবাব দিতে দিতে এর শেষ নেই সাংবাদিকদের। তাছাড়া সম্প্রতি কয়েক মাস আগে ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয় প্রেস লিখা মোটরসাইকেল ও কাগজবিহীন গাড়ি বহনকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) সিলেটের স্থানীয় এক দৈনিকে প্রকাশিত পুলিশের ৩ সদস্য হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে চড়ে ও মাস্ক না পরেই দিব্যি নগরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বলে একটি সংবাদের শিরোনামে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেলে ৩ পুলিশ উল্লেখ করে সংবাদ প্রকাশ করে। সংবাদটি প্রকাশের সাধারণ মানুষের মাঝে আলোচনার ঝড় বইছে।

উল্লেখ্য যে, পুলিশ সদস্যদের এমন কাজের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন সচেতন মহল। তারা বলেছেন, একজন সাধারণ জনগণ ও সাংবাদিকরা যেখানে আইন লঙ্ঘন করলে মামলা ও জরিমানা গুণতে হয়। সেখানে পুলিশ সদস্যরা কোন যুক্তিতে পার পেয়ে যান এমন প্রশ্ন সাধারণ জনগনের।

৬ সেপ্টেম্বর (সোমবার) দুপুর আড়াইটার দিকে সিলেট নগরীর উপশহর পয়েন্ট থেকে তিন পুলিশ সদস্য একটি মোটর সাইকেল (যার নম্বর- ঢাকা মেট্রো ল-২৩৭৭২০) চড়ে কোতওয়ালী থানা এলাকায় আসেন। এসময় তাদের কারো মাথায় ছিলো না হেলমেট। চালকের মুখে ছিলোনা মাস্ক। পথে তিনটি বড় পয়েন্টে (মেন্দিভাগ পয়েন্ট, সোবহানীঘাট ও কোর্ট পয়েন্ট) কর্মরত ট্রাফিক পুলিশ তাদের আটকায়নি। এইসব অপরাধে ট্রাফিক আইনে মামলা ও জরিমানা বিধান থাকলেও শুধু মাত্র পুলিশ সদস্য হিসেবে হাত উচিয়ে পার পেয়ে যান তারা।

এসময় নগরীর বন্দরবাজার এলাকায় এক পথচারী বলেন, তারা (পুলিশ) আইন ভাঙলে কিছু হয় না, আমরা এসব করলে উপায় নেই, তাদের জেল জরিমানা নাই, যত আইন আমরা সাধারণ মানুষের জন্য।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। দেশের প্রতিটি নাগরিককে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। যেসব পুলিশ সদস্য আইন ভেঙেছেন তাদের অবশ্যই আইনের প্রতি সদয় হতে হবে।

পিএন/এফএইচপি

, , ,

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজ‘এ । আজই পাঠিয়ে দিন feature.peoples@gmail.com মেইলে