• আজ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আ-লীগ নেতা চাকলাদারের জিঘাংসার শিকার অসহায় নারী-তার পরিবার

| দেশজুড়ে ডেস্ক ১১:০৩ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১, ২০২১ অপরাধ-দুর্নীতি, আওয়ামী লীগ, খুলনা

যশোর প্রতিনিধি: আওয়ামী লীগ নেতা এবং বর্তমান যশোর-৬ আসনের সংসদ সদস্য জনাব শাহীন চাকলাদারের আপন ভাই জহিরুল ইসলাম চাকলাদার ওরফে রেন্টু চাকলাদার এর জিঘাংসার শিকার যশোর এর বাসিন্দা খায়রুল আলম ভক্তির মেয়ে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মিসেস নাজনীন আলম ও তার পরিবার।

ঘটনার শুরু ২০০৫ সালে যখন রেন্টু চাকলাদার ব্যবসায়ীক কারণে মিসেস নাজনীনের সাথে পরিচয় ঘটে এবং রেন্টু চাকলাদার তাকে অনৈতিক প্রস্তাব দেন। মিসেস নাজনীন সে প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে রেন্টু চাকলাদার প্রতিশোধ নিতে নাজনীনকে ২০১৬ তে অপহরণ ও ধর্ষণ করেন।

পুলিশ বিষয়টির উপর কোনো ব্যবস্থা না নিলে নির্যাতিতা আদালতের সাহায্যের জন্য বিভিন্ন সংস্থায় যোগাযোগ করলেও রেন্টু চাকলাদার তার সমস্ত শক্তি নিয়ে প্রশাসন ও পুলিশকে দিয়ে নাজনীনেরও স্বামীর ব্যবসার এতটাই ক্ষতি সাধন করে যে, শেষ পর্যন্ত তা বন্ধই করে দিতে হয়।

অবশেষে, রেন্টুর ক্রমাগত হুমকিতে নাজনীন তার জীবন বাঁচাতে স্ব-পরিবারে সেপ্টেম্বর ২০১৮ তে বিদেশে চলে যেতে বাধ্য হন। সরকারী দলের নেতা হওয়ায় পুলিশ রেন্টুর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নিলেও এলাকার মানুষ বিষয়টি জেনে যায়। তারা রেন্টুর বিরুদ্ধে পোষ্টার ও লিফলেট বিলি করে যা, রেন্টু চাকলাদার রাজনৈতিক জীবনের উপর অত্যন্ত নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

ফলে, ২০২০ সালের যশোর উপনির্বাচনে রেন্টু চাকলাদারের প্রার্থীর আবেদন নাকচ করে আওয়ামী লীগ তার ভাই শাহীন চাকলাদারকে মনোনীত করেন। শাহীন চাকলাদার ১৪ই জুলাই ২০২০ সালের সেই উপনির্বাচনে যশোর আসনে বিজয় লাভ করেন। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায় যে, রেন্টু তার মনোনয়ন না পাবার জন্য মিসেস নাজনীনকে দায়ী করে এবং তার পরিবারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করে।

গত ৫ আগষ্ট ২০২০ তারিখে রেন্টুর লোকজন নাজনীনের ভাই সাকিল আলম’কে অপহরণ করে এবং নাজনীনের ঠিকানা বের করার চেষ্টা করে। নাজনীন ও তার পরিবারের সদস্যদেরকে দেশে ফেরত আনতে এবং গ্রেফতার করাতে তাদের নামে ২৭ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

সূত্রমতে নাজনীন ও তার পরিবারের সদস্যদের নামে ২৮ মার্চ ২০২১ তারিখে গ্রেফতারী পরোয়ানাও জারী করা হয়েছে। রেন্টু তারপর নানা ভাবে প্রশাসনকে প্রভাবিত করে সিলেটের ধর্মপাশা ইউনিয়নে অবস্থিত নাজনীনের স্বামী, জনাব আমিনুল ইসলামের ১০০% রপ্তানীমুখী কাষ্টম বন্ডেড ওয়্যার হাউস এর জন্য নির্ধারিত ৮০ কাঠা জমি দখল করে নেয় বলে জানা যায়।

শুধু তাই নয়, সম্প্রতি নাজনীনের বৃদ্ধ বাবাকে থানায় ডেকে এই বলে হুমকি দেয়া হয় যে, যদি নাজনীনকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া না হয়, তাহলে তার বাবার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা যায়।

প্রশাসনের ছত্রছায়ায় নারী নির্যাতনকারী রেন্টু চাকলাদার তাহলে কি ধরা ছোঁয়ার বাইরেই রয়ে যাবে? সময়েই এর উত্তর মিলবে বলে জনগণ আশা করে।

, , , , ,

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজ‘এ । আজই পাঠিয়ে দিন feature.peoples@gmail.com মেইলে