• আজ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাঘড়ায় পরাজিত প্রার্থীর সমর্থক খুলে নিলেন সরকারি টিউবওয়েল

| নিউজ এডিটর ৭:৩৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৮, ২০২১ মুন্সীগঞ্জ

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীর পরাজয়ে প্রতিবেশীদের সাথে ঈর্ষান্বিত হয়ে এক সরকারি একটি টিউবওয়েল খুলে নেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের পূর্ব বাঘড়ায় নৌকার সমর্থক মিনু বেগমের বিরুদ্ধে এই টিউওবয়েল খুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ উঠে ওয়াজউদ্দিনের কন্যা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী মিনু বেগম নির্বাচনের আগের দিন প্রতিবেশীদের দমাতে নৌকা ফেল করার বরাত দিয়ে টিউবওয়েলটি খুলে নেন। ৬/৭টি পরিবারের প্রয়োজনীয় পানি পাণের সুবিধার্থে বাঘড়া ইউপির তত্বাবধানে কলটি স্থাপন করা হয়েছিল। কলটি না থাকায় পরিবারগুলো বিশুদ্ধ পানির সংকটে পরেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসীকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।

স্থানীয়রা জানায়, চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামকে সমর্থক করেন মিনু বেগম। রহস্যজনক কারণে নির্বাচনের আগের দিন নৌকা পাশ না করলে কলটি খুলে নেওয়ার হুমকি দেয় মিনু। ফলাফল প্রকাশের পর টেলিফোন প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আবু আল নাসের তানজিল বিজয়ী হওয়ার ঘোষণা পর গত বৃহস্পতিবার রাতেই মিনু কলটি খুলে নিয়ে যায়।
ভুক্তভোগী প্রতিবেশী মো. এরশাদ বলেন, রাত ৮ টার দিকে ক্ষিপ্ত হয়ে মিনু কলটি খুলে নেয়। এর আগে মিনু বেগম হুমকি দেয় নৌকা ফেল করলে তোদের এই কল ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না। পরের দিন এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামকে জানিয়েছি। তিনি আসস্ত করেন, মিনুকে তিনি কলটি ফেরত দিতে বলবেন। এখনো কলটি স্থাপন করা হয়নি। আমরা প্রয়োজনীয় খাবার পানি পাচ্ছিনা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিশুদ্ধ পানির অভাব দূরীকরণে কয়েকটি পরিবারের সুবিধার্থে টিউবওয়েলটি মিনুর জায়গায় স্থাপন করা হয়। মিনুর সন্দেহ প্রতিবেশীরা তার কথায় নৌকা মার্কায় ভোট দেননি।

তাই মিনু বেগম প্রতিহিংসাবসত কলটি খুলে নেন। আরো জানা যায়, এলাকায় মিনু বেগমের বিরুদ্ধে মাদক কেনা বেচার তথ্য পাওয়া যায়। মাদক সংক্রান্ত ঘটনায় এর আগে মিনু একাধিকবার গ্রেফতার হয়েছিলেন। মিনু বেগম পূর্ব বাঘড়ার আলাউদ্দিনের স্ত্রী।
মিনু বেগমের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি দম্ভ করে বলেন, এটা সরকারি কল নয়। নুরুল ইসলাম চেয়ারম্যান আমাকে ব্যক্তিগতভাবে দিয়েছে। তাই কলটি খুলেছি। এলাকায় মাদক কেনা বেচা প্রসঙ্গে মিনু বেগমকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, অনেক আগে গ্রেফতার হয়েছিলাম। এখন মাদকের সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই।

বাঘড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম এ ব্যাপারে বলেন, ব্যক্তিগত হউক বা সরকারি হউক জনগণের স্বার্থে টিউবওয়েলটি বসানো হয়েছে। যতদূর মনে পরে ২/৩ বছরে আগে ওই বাড়িতে একটি কল বসানো হয়েছিল। এই টিউবওয়েলটি খুলে নেওয়ার অধিকার কারও নেই। আমি বিষয়টি সমাধানে দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজ‘এ । আজই পাঠিয়ে দিন feature.peoples@gmail.com মেইলে