• আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘারমোড়ায় আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদেরকে আজমীর ওসমানের লাখ টাকা অনুদান

| Sub Editor ১:৫৪ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৯, ২০২২ সারাদেশ

নিজস্ব সংবাদদাতা:বন্দরের ঘারমোড়া এলাকায় আগুনে পুড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার চার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন সাবেক সাংসদ বীরমুক্তিযোদ্ধা একেএম নাসিম ওসমানের জৈষ্ঠপুত্র আলহাজ্ব আজমীর ওসমান।

২৮ নভেম্বর সন্ধায় তার পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যদের হাতে পরিবার প্রতি ২৫ হাজার করে সর্বমোট ১লাখ টাকা অনুদান তুলে দেন স্থানীয় ওপেন হার্ট সংসদের সদস্য অনিক সরদার,মোঃ শাকিল ও মোঃ ইসলাম। আজমীর ওসমানের প্রদত্ত অনুদানের টাকা পেয়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন ক্ষতগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা। এ সময় শিক্ষানুরাগী আবু তালেব সরদার,মোঃ মহিউদ্দিন ও মোঃ সেলিম মিয়াসহ এলাকার
গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ঘারমোড়ায় আগুনে পুড়ে সর্বস্ব হারানো চার পরিবারের পাশে দাড়ালেন দানবীর খোকন

নিজস্ব সংবাদদাতা:নারায়ণগঞ্জ বন্দরের ঘারমোড়া এলাকায় আগুনে পুড়ে সর্বস্ব হারানো চার পরিবারের পাশে দাড়িয়েছেন চর ঘারমোড়া এলাকার মানবতার ফেরিওয়ালা খ্যাত দানবীর তথা সালামতউল্লাহ রিসার্চ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান হাসান আহাম্মেদ খোকন। ২৭ নভেম্বর বিকেলে তিনি স্ব শরীরে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোর খোঁজ-খবর নেন এবং তাদেরকে পুড়ে যাওয়া ৪টি ঘর পূণরায় নির্মাণ করে দেয়ার প্রতিশ্রতি দেন। ৪টি ঘর নির্মাণে খরচ ধরা হয়েছে আড়াইলাখ টাকা। তবে তারচেয়ে বেশি খরচ হলেও হাসান আহাম্মদ খোকন তা করে দেয়ার ব্যাপারে আশ্বস্ত করেন।

দানবীর হাসান আহাম্মদ খোকনের আশ্বাসে পরিবারটি নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছেন। ক্ষতিগ্রস্থ দিনমজুর সুজন,পিয়ার হোসেন ও পীর মোহাম্মদ। দানবীর হাসান আহাম্মদ খোকনের উদারতাকে স্যালুট জানিয়ে স্থানীয় জনৈক ব্যাক্তি কামাল হোসেন সাংবাদিকদেরকে জানান,বর্তমান সময়ে কেউ কারো পাশে দাড়ায় না হাসান আহাম্মদ খোকন সত্যিকার অর্থেই একজন মানবতার ফেরিওয়ালা। তার মতো দয়ালু ব্যাক্তি দেশে অপ্রতুল। যারা মানুষের বিপদে পাশে থাকে তারা মানুষ নয় ফেরেশতা। মহান রাব্বুল আল আমিন হাসান আহাম্মদ খোকনকে শত শত বছর
দীর্ঘজীবি করুক। অপরাপর বাসিন্দা খোরশেদ আলম জানান,হাসান আহাম্মদ খোকন এমন একজন ব্যক্তি যিনি বিদেশের মাটিতে অবস্থান করেও দেশের মানুষের দুঃখ-দুর্দশা নিয়ে ভাবেন। সুদুর প্রবাসে থেকে মানুষের কল্যাণে সর্বদাই কাজ করে থাকেন। তার জন্য আপামর গণ মানুষের দোয়া এমনিতেই চলে আসে। উল্লেখ্য,২৫ নভেম্বর রাত ১১টায় বৈদ্যুতি শর্ট সার্কিট হতে আগুন লেগে সুজন,পিয়ার হোসেন ও পীর মোহাম্মদ নামে তিন দিনমজুরের বসত ঘরের আসবাবপত্রসহ সর্বস্ব পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজ‘এ । আজই পাঠিয়ে দিন feature.peoples@gmail.com মেইলে