• আজ ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
পিপলস শিরোনাম
 ছেলের কারাদন্ড হাজী সেলিমের সাম্রাজ্য পতন | সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ইন্দিরা গান্ধী মঞ্চ তৈরি করা হবে : মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী | ভ্যাকসিন আনতে দু-চার দিনের মধ্যেই চুক্তি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী | পণ্য বর্জনের ডাক, ফ্রান্সের ঘড়ি ফেলে দিলেন ফারিয়া | ফের ২ দিনের রিমান্ডে ইরফান সেলিমের ব্যক্তিগত সহকারী দিপু | ওসি-ডিসিরা অভিযোগ না শুনলে আমার দুয়ার খোলা : ডিএমপি কমিশনার | বিএনপি আমাদের শক্র নয় আর মির্জা ফখরুল একজন সজ্জন মানুষ: কাদের | আমার দেশের মানুষ, আমার এলাকার মানুষ তারা কষ্টে থাকবে, এটা তো মানবতা না: প্রধানমন্ত্রী | করোনা কেড়ে নিল আরও ১৮ প্রাণ, শনাক্ত ১৩২০ | বিএনপির রাজনীতি এখন ফেসবুক স্ট্যাটাস ও গণমাধ্যমেই সীমাবদ্ধ : কাদের |

দুই দেশের একটি মসজিদ!

| মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম ১:১৩ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০ ভিন্ন ম্বাধের খবর, স্পেশাল
ছবি :সংগৃহীত

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নের বাঁশজানি সীমান্তে রয়েছে দুই দেশের একটি মসজিদ। বাংলাদেশ আর ভারতের পশ্চিম বঙ্গের মানুষের মসজিদ এটি। ভারত ও বাংলাদেশের সীমান্তঘেঁষা এই মসজিদটি দুই দেশের মানুষকে এক সেতুবন্ধনে আবদ্ধ করে রেখেছে।

কিন্তু মসজিটির জরাজীর্ণ অবস্থা। দুই সীমান্তের মানুষের একই দাবি, আইনি জ’টিলতা কাটিয়ে ঐতিহাসিক এই মসজিদটির একটি স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণ হোক।

দুই দেশের মুসলমানরা একই মসজিদে নামাজ পড়ছেন। বাংলাদেশ ও ভারত সীমানার আন্তর্জাতিক মেইন পিলার ৯৭৮ এর সাব পিলার ৯ এসের পাশে এই মসজিদটি অবস্থিত।

উত্তরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার সাহেবগঞ্জ থানার ঝাকুয়াটারী গ্রাম, দক্ষিণে কুড়িগ্রাম জেলার ভুরুঙ্গামারী উপজেলার পাথরডুবি ইউনিয়নের বাঁশজানি গ্রাম।

মসজিদটি দুই সীমান্তের শূন্য রেখায় বাংলাদেশের ভূখণ্ডে নির্মিত। এ মসজিদের নাম ‘ঝাকুয়াটারী সীমা’ন্ত জামে মসজিদ’। মসজিদটির বয়স প্রায় দুই শত বছর হবে বলে দুই দেশের অধিবাসীরা জানিয়ছেন।

বৃটিশ আমল থেকেই মসজিদটি দাঁড়িয়ে আছে মুসলিম সম্প্রীতির প্রতীক হয়ে। দেশভাগের আগে আত্মীয়-স্বজন নিয়ে এখানকার সমাজ গড়ে উঠেছিল। ১৯৪৭ সালে ভারতীয় উপমহাদেশ বিভক্ত হলে গ্রামটির উত্তর অংশ ভারতের এবং দক্ষিণ অংশ বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থেকে যায়।

ভারতীয় অংশের নাম হয় ঝাকুয়াটারী, আর বাংলাদেশের অংশ নামকরণ হয় বাঁশজানি গ্রাম। পরবর্তীতে ভারত কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করলে ভারতের অংশটি বেড়ার বাইরে পড়ে যায়।
গ্রামটি আন্তর্জাতিক সীমানা পিলার দিয়ে দুটি দেশে বিভক্ত হলেও ভাগ হয়নি তাদের সামাজিক বন্ধন। প্রতিবেশীর মতোই তাদের বসবাস। ভিন্ন সংস্কৃতি ভিন্ন দেশ হওয়া সত্ত্বেও তারা একই সমাজের বাসিন্দা, একই মসজিদের মুসল্লি।

মসজিদের মুয়াজ্জিন বাঁশজানি গ্রামের বাসিন্দা নজরুল মিয়া (৬১) বলেন, আজানের ধ্বনিতে দুই বাংলার মুসল্লিরা ছুটে আসেন মসজিদে। একসাথে নামাজ আদায় করি। একে অপরের প্রীতি আর ভালোবাসায় মুগ্ধ হই।

আমরা দুই বাংলার সীমান্তবাসী দুঃখ, বেদনা ও সুখের কথা আদান প্রদান করে থাকি। একই সমাজভুক্ত হওয়ায় একে অপরের বিপ’দে-আপ’দে ছু’টে যাই আমরা।

একই গ্রামের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম (৩২) জানান, ঐতিহ্যবাহী সীমান্ত এই মসজিদটি দেখতে বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন স্থান থেকে দর্শনার্থীরাও আসেন। তারাও এই মসজিদে নামাজ পড়েন।

ভারতের ঝাকুয়াটারী গ্রাম থেকে আসা মুসল্লি খয়বর আলী (৭৮) বলেন, সীমান্ত মসজিদটি দুইশ বছরের পুরনো হলেও অবকাঠামোগত কোনো উন্নতি হয়নি।

সীমান্তে অবকাঠামো নির্মাণে আন্তর্জাতিক আইনে বি’ধি নি’ষেধ থাকায় মসজিদের অবকাঠামো নির্মাণ সম্ভবও হচ্ছে না। দুই বাংলার মানুষের আর্থিক সহায়তা দিয়ে মসজিদটির অস্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণ ও মেরামত করা হয়।

মসজিদের ইমাম বাঁশজানি গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিক (৪৩) বলেন, শুক্রবার জুমার নামাজে সীমান্তের এই মসজিদ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা মুসুল্লীিদের ভিড়ে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে।

বাংলাদেশ ও ভারতের মুসল্লিরা নামাজ শেষে তবারক বিতরণ করেন। ভারতের গাড়ল ঝড়া জুনিয়র হাইস্কুলের ৫ম শ্রেণির ছাত্র মাসুদ শেখ (১১) জানায়, অবসরে দুই দেশের শিশুরা মিলেমিশে খেলাধুলা করি।

ভারতের ঝাকুয়াটারী গ্রামের আহমেদ আলী (৬৫) বলেন, গ্রামের মাঝ বরাবর একটি কাঁচা সড়ক আছে। আর এই সড়কটির অর্ধেক হলো বাংলাদেশের আর অর্ধেকটা হলো ভারতের। উভয় দেশে নাগরিক যৌথভাবে এই সড়কটি ব্যবহার করি। সংস্কারের সময় আমরা যৌথভাবে কাজ করি।

তিনি আরও জানান, ভারতের ঝাকুয়াটারী গ্রামে ৪৫টি পরিবারের আড়াইশ মানুষের বাস। এখানে আমাদের জমিজমা ও বসতভিটা থাকায় কাঁটাতারের বেড়া হলেও আমাদের পৈতৃকভিটা ছেড়ে ভেতরে চলে যায়নি।

দুই সীমান্তের মানুষের সাথে রয়েছে আত্মীয়তার বন্ধন। আমাদের মধ্যে কোনো প্রকার ঝগ’ড়া বি’বাদ ও জ’টিলতা সৃষ্টি হয়নি।

মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশের কফিলুর রহমান বলেন, আমাদের পূর্বপুরুষরাও এই সমাজে ছিলেন, আমরাও আছি।

দুই দেশ ভাগ হলেও আমাদের সমাজ ও মসজিদ এখনো ভাগ হয়নি। কিন্তু দুই দেশের আইনি জ’টিলতা কা’টিয়ে মসজিদের স্থায়ী অবকাঠামো নির্মানের দা’বি করেন তিনি।

,

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - feature.peoples@gmail.com