• আজ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

স্বামীর গায়ে এসিড ছুঁড়ে টাকা ছিনিয়ে নিলেন স্ত্রী

| নিউজ রুম এডিটর ৯:২৫ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২১, ২০২০ দেশজুড়ে
-হামলার শিকার শ্রী বাসুদেব চন্দ্র কর্মকার। ছবি: সংগৃহীত

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে স্বামীর গায়ে এসিড ছুঁড়ে দেড় লাখ টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্ত্রী, তার ভাই কাকাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

গত বুধবার (১৮ নভেম্বর) ঘোড়াঘাট পৌরসভার নয়াপাড়া গ্রামে স্ত্রীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার ওই ব্যক্তি ঘোড়াঘাট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ভর্তি রেজিস্টারে তাকে এসিড বার্নড (থ্রো) হিসেবে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলার শিকার শ্রী বাসুদেব চন্দ্র কর্মকার (৩৬) বগুড়া জেলার ধুনট উপজেলার পেঁচিবাড়ি গ্রামের মৃত নিরঞ্জন চন্দ্র কর্মকারের ছেলে। প্রথম স্ত্রী মারা যাবার ১১ মাস পর বাসুদেব দ্বিতীয় বিয়ে করেন।

অভিযুক্তরা হলেন- স্ত্রী প্রতিমা রাণী (৩৫), তার ভাই প্রকাশ, কাকাতো ভাই গোপাল ও বিকাশ। প্রতিমা ঘোড়াঘাট পৌর এলাকার নয়াপাড়া গ্রামের কোবাত কর্মকারের মেয়ে।

বাসুদেব জানান, গত চার মাস আগে স্ত্রী প্রতিমা রানী বাসুদেবের অজান্তে বাড়িতে থাকা নগদ ৬৫ হাজার টাকা, দেড় ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও প্রায় ১০ কেজি ওজনের কাসার বাসনপত্র নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে যান। এরপর প্রতিমা রাণী অকারণেই ঘোড়াঘাট থানায় একটি অভিযোগ দেন। এ নিয়ে ঘোড়াঘাট থানায় এক সালিশি বৈঠক হয়। বৈঠকে তাদের অন্যত্র বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতে বলা হয়। ওই বৈঠকে প্রতিমা রাণী স্বামীর অনুগত হয়ে সংসার করার স্বীকারোক্তি দেন। কিন্তু অন্যত্র বাসা ভাড়া নেওয়া হলেও প্রতিমা বাবার বাড়িতেই থেকে যান।

এরপর বাসুদেব তার নিজ জেলার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে বাড়ি ও জমি বিক্রি করে দেন। খবর পেয়ে স্ত্রী প্রতিমা রানী গত ১৮ নভেম্বর বিভিন্ন প্রলোভনে তাকে বাবার বাড়িতে ডেকে নেন।

এক পর্যায়ে অতর্কিতে প্রতিমা ও তার ছোট ভাই প্রকাশসহ কাকাতো ভাই গোপাল ও বিকাশ তার চোখে মুখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে এসিড নিক্ষেপ করে বাসুদেবের কাছে থাকা দেড় লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়। তাকে উদ্ধার করে ঘোড়াঘাট থানায় নিয়ে গেলে পুলিশ তাকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেয়।

বাসুদেবের দাবি করে বলেন, স্ত্রী বাবার বাড়িতে থাকাকালীন পেটে থাকা একটি সন্তান নষ্ট করেছে। ঘটনার চারদিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ কোনো খোঁজখবর নেয়নি। তার নিকটতম কোন আত্মীয় এখানে না থাকায় হাসপাতালের বেডে থাকা রোগীরাই তার দেখাশোনা করছেন।

ঘোড়াঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আজিম উদ্দিন বলেন, আজ রাতেই অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পিএন/এএমএস


করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন পিপলস নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - feature.peoples@gmail.com