ঢাকা, ১৯শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রাবি ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ

প্রকাশিত: শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২০ ১১:১১ পূর্বাহ্ণ  

| আশিক ইসলাম, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগ নেতা তারেক মাহমুদের বিরুদ্ধে এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান হল সংলগ্ন (বোটানিক্যাল গার্ডেন) জায়গায় এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করেছে সেই শিক্ষার্থী।

এঘটনায় নগরীর মতিহার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেছেন তিনি। তবে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পথ রোধ করে সেই শিক্ষার্থী হুমকি দিয়েছে দাবি করে পাল্টা জিডি করেছে সেই ছাত্রলীগ নেতা।

শিক্ষার্থী মিরাজুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি অ্যান্ড এনিম্যাল সায়েন্স বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। অপরদিকে ছাত্রলীগ নেতা তারেক মাহমুদ রাবি ছাত্রলীগের উপগ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক।

এঘটনায় বিকেলে তারেকসহ শাখা ছাত্রলীগের অজ্ঞাত ১৫ থেকে ২০ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে নগরীর মতিহার থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন ভুক্তভোগী মিরাজ। অপরদিকে এদিন সন্ধ্যায় একই থানায় তারেক জিডি করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ।

জিডিতে সেই উল্লেখ করেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে তিনি বোটানিক্যাল গার্ডেনের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এসময় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তারেক মাহমুদসহ ছাত্রলীগের আরও ১৫ থেকে ২০ জন নেতাকর্মী এসে তাকে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। মারধরের কথা কাউকে জানালে তাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়া হয় বলে মিরাজ জিডিতে উল্লেখ করেন।

এবিষয়ে মিরাজুল ইসলাম বলেন, তারেক ও তার সাথে থাকা কয়েকজন আমাকে ডেকে আমার এক বান্ধবীর কথা জিজ্ঞেস করে। সে আমার উত্তরের অপেক্ষা না করেই আমাকে মারধর শুরু করে। এসময় সে আমার মোবাইলটি হাত থেকে কেড়ে নিয়ে ভেঙ্গে ফেলে ও জোরপূর্বক মানিব্যাগে থাকা সব টাকা ছিনিয়ে নেয়।

এদিকে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী হাসান মাহমুদ তারেক বলেন, ওখানে মারধরের কোন ঘটনা ঘটেনি। দীর্ঘদিন ধরে ওই ছেলে এক মেয়েকে উত্ত্যক্ত করে আসছিলো। তাই তার সঙ্গে আমরা শুধু কথা বলেছিলাম। তবে সন্ধ্যায় সাধারণ ডায়েরিতে তারেক উল্লেখ করেন, পথ রোধ করে মিরাজুল ও মাদার বখশ হলের নাঈম মাহমুদসহ অজ্ঞাত ৫/৬ জন হুমকি দিয়ে বলে তোকে দেখে নিবো।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, আমি এখনও বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পারিনি। পুরো বিষয়টি না জেনে আমি কোন মন্তব্য করতে পারব না।

এবিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, মারধরের ব্যাপারে কোন লিখিত বা মৌখিক কোন অভিযোগ পাইনি। সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পারছি। ভুক্তভোগীর সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস ও মতামত কলামে লিখতে পারেন আপনিও – Peoplesnews24.com@gmail.com ইমেইল করুন  

সর্বশেষ

জনপ্রিয় সংবাদ