ঢাকা, ২৯শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফিলিস্তিনি নি’র্যাতিত মুসলিমদের পাশে দাঁড়াল আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান!

প্রকাশিত: রবিবার, ডিসেম্বর ২২, ২০১৯ ১১:০২ অপরাহ্ণ  

| পলাশ মন্ডল, সাব-এডিটর

একের পর এক ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদ করে ইসরায়েলি বসতি বাড়াতে একের পর এক পদক্ষেপ নিয়েছেন ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর তিনিও এতে শামিল হয়েছেন। এমন অভিযোগ রয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে।

মূলত ফিলিস্তিন নয়, এই বিশ্ব নেতাদের আসল উদ্দেশ্য মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রগুলোকে ধ্বং’স করে দেওয়া। কিন্তু এবার হয়ত অশনি সঙ্কেত দেখে দিতে পারে ইসরায়েলদের। কারণ ফিলিস্তিনি অঞ্চলে ইসরায়েলের যু’দ্ধাপরাধের পুরোপুরি তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)-র প্রধান কৌঁসুলি ফাতো বেনসুদা।

তিনি বলেছেন, এই তদন্তের পর ইসরায়েলি ও ফিলিস্তিনিদের বি’রুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া যেতে পারে। গত শুক্রবার এক বিবৃতিতে বেনসুদা বলেন, পূর্ব জেরুজালেমসহ পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকায় যু’দ্ধাপরাধ সংঘটিত হয়েছে এবং হচ্ছে।

তিনি বলেন, যেহেতু ফিলিস্তিনি অঞ্চল থেকে এই তদন্তের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে, তাই এটি শুরু করার জন্য বিচারকদের অনুমোদনের প্রয়োজন নেই। কিন্তু ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এর ঘোর অভিযোগ করে বলেছেন, ‘ফিলিস্তিনিদের কারসাজির দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন এই কৌঁসুলি,

যারা এই আদালতকে উইপেনাইজ করতে চায়’। উল্লেখ্য, সারা বিশ্বে ১৮টি মুসলিম প্রধান দেশ রয়েছে। এই দেশগুলোর মধ্যে যু’দ্ধ বাধিয়ে দিতে পারলে দুটো কাজ হবে। একটা হলো, যুক্তরাষ্ট্র আর ইসরায়েলের অ’স্ত্র বিক্রি হবে। আর দ্বিতীয়টি হলো দেশগুলোতে মার্কিন নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা সহজ হবে।

মাহাথিরের মন্তব্যে চটেছে ভারত, মালয়েশিয়ার কূটনীতিককে তলব

বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মাদের মন্তব্যে ক্ষু’ব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ভারত। এ ঘটনায় দেশটিতে নিযুক্ত মালয়েশিয়ান কূটনীতিককেও তলব করা হয়েছে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেদেশে নিযুক্ত মালয়েশিয়ার চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্সকে তলব করে তাদের প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য অগ্রহণযোগ্য এবং ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ বলে জানিয়েছে।

মাহাথির মোহাম্মাদ ভুল তথ্যের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব আইন সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন বলে ভারত দাবি করেছে। শুক্রবার কুয়ালালামপুর সামিট-২০১৯ এ দেয়া এক ভাষণে ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রশ্ন তুলেন মাহাথির মোহাম্মাদ।

তিনি বলেন, কোনো সমস্যা ছাড়াই তো ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষ ভারতের নাগরিকরা গত ৭০ বছর ধরে একসঙ্গে বসবাস করছেন। তাহলে এখন এই আইনের প্রয়োজন কি? উল্টো আমরা দেখছি এই আইনের বিরোধিতা করে ভারতে বি’ক্ষোভ-সং’ঘাতে মানুষ মারা যাচ্ছে।

নাগরিকত্ব আইনে ধর্ম টেনে আনাকে নিন্দা জানিয়ে সম্মেলনে মাহাথির আরো বলেন, আমি দুঃখিত আমাকে এটা বলতে হচ্ছে যে, ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত ভারত কিছু মুসলিমের নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করছে।

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস ও মতামত কলামে লিখতে পারেন আপনিও – Peoplesnews24.com@gmail.com ইমেইল করুন  

সর্বশেষ

জনপ্রিয় সংবাদ