• আজ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তানোরে এক ইউপিতে আওয়ামী লীগের পৃথক কমিটি তৃণমূলে ক্ষোভ

| নিউজ রুম এডিটর ১:৩৯ অপরাহ্ণ | জুলাই ১২, ২০২৩ আওয়ামী লীগ, রাজনীতি

রাজশাহীর তানোরের কলমা ইউনিয়ন (ইউপি) আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। জানা গেছে, গত ১১জুলাই মঙ্গলবার ইউপি আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এবং ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লুৎফর রহমান রাব্বির সভাপতিত্বে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রদিপ সরকারের সঞ্চালনায় দরগাডাঙা স্কুল এ্যান্ড কলেজ মাঠে আয়োজিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী। অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম স্বপন, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান আবু বাক্কার ও সোনীয়া সরদার, কামারগাঁ ইউপি চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদ মিঞা, পাঁচন্দর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন, উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক রাম কমল সাহা, উপজেলা যুবলীগের সম্পাদক জুবায়ের ইসলাম, প্রধান জিল্লুর রহমান, প্রভাষক মুন্সেফ আলী, বিশিষ্ট সমাজসেবক আবুল বাসার সুজন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক শামসুল ইসলাম, সদস্য সচিব রামিল হাসান সুইট, কলমা ইউপি স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি তানভির রেজা ও সম্পাদক আপেলপ্রমুখ। সভায় আলহাজ্ব মুনসুর রহমানকে সভাপতি ও আতাউর রহমানকে সম্পাদক করে কলমা পশ্চিম এবং আলহাজ্ব আব্দুর রাহিমকে সভাপতি ও আনোয়ার হোসেনকে সম্পাদক করে কলমা পুর্ব ইউপি কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে এটাকে চাপিয়ে দেয়া কমিটি আঙ্খা দিয়ে তৃণমুলের নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে, বাড়ছে ক্ষোভ-অসন্তোস। এছাড়াও কলমা আওয়ামী লীগের হৃদপিণ্ড উপজেলা চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না গুরুতর অসুস্থ হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন। অথচ ব্যানারে তার নাম নাই, তার জন্য দোয়া চাওয়া তো পরের কথা সম্মেলনে একটি বারের জন্য তার নাম নেয়া হয়নি, যেটা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা মেনে নিতে পারছে না। তৃণমূল বলছে, কলমা আওয়ামী লীগের আঁতুড় ঘর। আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে কি এতোটাই দেউলিয়া হয়ে পড়েছে, যে অনুপ্রবেশকারী হিসেবে পরিচিত আব্দুর রাহিমকে সভাপতি করতে হচ্ছে। অথচ তিনি বিএনপির আর্থিক পৃষ্ঠপোষক ও তার পুরো পরিবার এখানো আওয়ামী বিরোধী মতাদর্শী বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এদিন দরগাডাঙা স্কুল এন্ড কলেজ ও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ রেখে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি বার্ষিক সম্মেলন করা হয়েছে। সম্মেলনে এমপির অনুসারীদের খুশী করতে কোনো পুর্ব পরিকল্পনা ছাড়াই হঠাৎ এক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের পূর্ব ও পশ্চিম নামে পৃথক কমিটি গঠন করা হয়েছে। অন্যদিকে সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে ইউপির পূর্ব ও পশ্চিম দুই কমিটিতে ৫ থেকে ৭ জন করে পদ প্রত্যাশী হলেও কোনো আলোচনা ছাড়াই সভাপতি-সম্পাদক মোট চারজনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম স্বপন নাম ঘোষণা করেন। যিনি কলমা ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে গো-হারা হেরেছেন। আবার এক ইউনিয়নে দুটো কমিটি ঘোষণা করায় তৃণমূল ক্ষুব্ধ জনমনেও ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে দরগাডাঙা স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মনিরুল কবির বকুল বলেন, আমার স্কুল ও কলেজে ৪০০ শিক্ষার্থী। এমপি (ফারুক চৌধুরী) মহোদয় সম্মেলনের জন্য আমার স্কুলের মাঠ নির্ধারণ করেন। মঙ্গলবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে স্কুলের মাঠে লোকে লোকারন্য হয়ে ওঠে। যার কারণে একটা পর্যন্ত ক্লাস নিয়ে শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির নেতা তানভীর রেজা বলেন, ‘স্কুল মাঠে সম্মেলন হয়েছে।

তবে স্কুল ছুটি দেওয়া হয়নি। বিকেলে অনুষ্ঠান হয়েছে। যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।’ কলমা ইউনিয়ন পূর্ব শাখার নতুন কমিটির সভাপতি আব্দুর রাহিমের মোবাইল নম্বরে কল করা হলে নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। এবিষয়ে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিল্লাল হোসেন বলেন, ‘স্কুল বন্ধ রেখে কোন অনুষ্ঠান করার সুযোগ নেই। তবে এ বিষয়ে আমার কোনকিছুই জানা নেই বা কেউ কোনো অভিযোগ করেননি।’ পরে তিনি স্থানীয় এমপির সঙ্গে কথা বলতে বলেন। বিষয় নিয়ে কথা বলতে একাধিকবার কল করা হলেও এমপি ফারুক চৌধুরী কল রিসিভ করেননি। কলমা ইউনিয়নের নবগঠিত কমিটির বিষয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ‘এমপি ফারুক চৌধুরী নিজেই তো বিএনপির লোক। তাই তার করা কমিটি নিয়ে আমার কোনো মন্তব্য নাই।